top of page
  • Writer's pictureLacsb.com

বাংলাদেশে ডোমেইন নাম বিবাদ এবং সাইবার-স্কোয়াটিং: আইনি প্রতিকার এবং সমাধান




প্রযুক্তি এবং ইন্টারনেটের অগ্রগতির সাথে, ডোমেইন নামগুলি একইভাবে ব্যবসা এবং ব্যক্তিদের জন্য একটি মূল্যবান পণ্য হয়ে উঠেছে। যাইহোক, এই বর্ধিত মূল্যের সাথে ডোমেন নাম বিবাদ এবং সাইবার-স্কোয়াটিং এর সম্ভাবনা রয়েছে। ডোমেন নামের বিরোধ বলতে দুই বা ততোধিক পক্ষের দ্বারা নিবন্ধন, মালিকানা বা ডোমেন নামের ব্যবহার নিয়ে বিরোধকে বোঝায়। সাইবার-স্কোয়াটিং, অন্যদিকে, একটি ট্রেডমার্ক বা ব্র্যান্ডের সদিচ্ছা থেকে লাভের অভিপ্রায়ে খারাপ বিশ্বাসে একটি ডোমেন নাম নিবন্ধন করা জড়িত।


বাংলাদেশে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ডোমেইন নামের বিরোধ এবং সাইবার স্কোয়াটিং ক্রমশ সাধারণ হয়ে উঠেছে। এই কাগজটি বাংলাদেশে ডোমেইন নামের বিরোধ এবং সাইবার-স্কোয়াটিংয়ে জড়িত পক্ষগুলির জন্য উপলব্ধ আইনি প্রতিকার এবং সমাধানগুলি অন্বেষণ করবে। অতিরিক্তভাবে, এই বিরোধের সাথে জড়িত পক্ষগুলির সম্মুখীন হওয়া সমস্যাগুলি এবং কীভাবে আইনজীবীরা তাদের সমাধানে সহায়তা করতে পারেন তা চিত্রিত করার জন্য পরিস্থিতি এবং উদাহরণ প্রদান করা হবে৷



বাংলাদেশে ডোমেইন নামের বিরোধ


বাংলাদেশে ডোমেইন নামের বিরোধ বিভিন্নভাবে দেখা দিতে পারে। একটি সাধারণ দৃশ্যের মধ্যে একটি ডোমেন নামের নিবন্ধন জড়িত যা বিদ্যমান ট্রেডমার্ক বা ব্র্যান্ডের সাথে অভিন্ন বা বিভ্রান্তিকরভাবে অনুরূপ। এটি ভোক্তাদের মধ্যে বিভ্রান্তির কারণ হতে পারে, যারা ভুলভাবে বিশ্বাস করতে পারে যে ডোমেন নামের সাথে যুক্ত ওয়েবসাইটটি ট্রেডমার্ক মালিকের দ্বারা অনুমোদিত বা অনুমোদিত।


অন্য একটি দৃশ্যে একটি ডোমেন নামের নিবন্ধন জড়িত যা একটি ভৌগলিক অবস্থান বা সাংস্কৃতিক প্রতীক অন্তর্ভুক্ত করে, প্রাসঙ্গিক কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই। এটি বাংলাদেশে বিশেষভাবে সমস্যাযুক্ত হতে পারে, যেখানে নির্দিষ্ট সাংস্কৃতিক প্রতীক এবং ল্যান্ডমার্ককে পবিত্র বা সাংস্কৃতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হয়।


বাংলাদেশে ডোমেইন নাম বিবাদের আইনি প্রতিকার


বাংলাদেশে, ডোমেইন নাম বিরোধের প্রাথমিক আইনি প্রতিকার হল আদালত ব্যবস্থার মাধ্যমে। বাংলাদেশে ডোমেইন নামগুলিকে নিয়ন্ত্রণকারী প্রাসঙ্গিক আইন হল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন 2006 (আইসিটি আইন)। এই আইনের অধীনে, একটি পক্ষ মেধা সম্পত্তি অধিকার লঙ্ঘনের জন্য বা পাস অফ করার জন্য একটি ডোমেন নামের মালিকের বিরুদ্ধে দেওয়ানি মামলা দায়ের করতে পারে।


একটি ডোমেন নাম বিবাদে সফল হওয়ার জন্য, বাদীকে অবশ্যই প্রদর্শন করতে হবে যে লঙ্ঘন করা হচ্ছে এমন নাম বা চিহ্নে তাদের একটি বৈধ এবং স্থায়ী বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পত্তি রয়েছে৷ এটি ট্রেডমার্ক নিবন্ধনের মাধ্যমে বা নাম বা চিহ্নে সাধারণ আইনের অধিকার প্রমাণ করার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে।


একবার বাদী নাম বা চিহ্নে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করলে, তাদের অবশ্যই দেখাতে হবে যে প্রশ্নে থাকা ডোমেন নামটি তাদের চিহ্নের সাথে অভিন্ন বা বিভ্রান্তিকরভাবে অনুরূপ এবং বিবাদী রেজিস্টার করেছে বা খারাপ বিশ্বাসে ডোমেন নাম ব্যবহার করছে। এটি একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ হতে পারে, কারণ এটির জন্য ডোমেইন নাম, বাদীর চিহ্ন এবং বিবাদীর উদ্দেশ্যগুলির একটি সতর্ক বিশ্লেষণ প্রয়োজন৷


আদালত যদি বাদীর পক্ষে খুঁজে পায়, তাহলে লঙ্ঘনের ফলে যে কোনো ক্ষতির জন্য তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হতে পারে, সেইসাথে বিবাদীকে প্রশ্নবিদ্ধ ডোমেন নাম ব্যবহার করা থেকে বিরত রাখার নিষেধাজ্ঞা।


দৃশ্যকল্প: একটি বাংলাদেশী টেক্সটাইল কোম্পানি, "ABC Textiles," কয়েক বছর ধরে ডোমেইন নাম www.abctextiless.com ব্যবহার করছে। একটি প্রতিযোগী, "XYZ টেক্সটাইলস," তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটে ট্রাফিক ডাইভার্ট করার উদ্দেশ্যে www.abctextiless.com ডোমেন নাম নিবন্ধন করে। ABC Textiles XYZ Textiles এর বিরুদ্ধে ট্রেডমার্ক লঙ্ঘন এবং পাস করার জন্য একটি দেওয়ানী মামলা দায়ের করেছে।


আইনজীবীর ভূমিকা: ABC টেক্সটাইলের প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবীকে দেখাতে হবে যে ABC Textiles-এর "ABC Textiles" নামে একটি বৈধ এবং স্থায়ী ট্রেডমার্ক রয়েছে এবং XYZ টেক্সটাইলের ডোমেন নামটি বিভ্রান্তিকরভাবে ABC টেক্সটাইলের চিহ্নের মতো। আইনজীবীকে এটাও প্রতিষ্ঠিত করতে হবে যে XYZ টেক্সটাইলস এবিসি টেক্সটাইলের চিহ্নের সদিচ্ছা থেকে লাভের অভিপ্রায়ে খারাপ বিশ্বাসে ডোমেন নাম নিবন্ধন করেছে। সফল হলে, আইনজীবী এবিসি টেক্সটাইলের জন্য ক্ষতিপূরণ সুরক্ষিত করতে পারে, সেইসাথে XYZ টেক্সটাইলকে প্রশ্নে ডোমেন নাম ব্যবহার করা থেকে বিরত রাখার আদেশ।



বাংলাদেশে সাইবার স্কোয়াটিং


সাইবার-স্কোয়াটিং বাংলাদেশে একটি সাধারণ সমস্যা, বিশেষ করে ই-কমার্স এবং অনলাইন ব্যবসার উত্থানের সাথে। সাইবার-স্কোয়াটাররা প্রায়শই ডোমেইন নাম নিবন্ধন করে যা সুপরিচিত ব্র্যান্ড বা ট্রেডমার্কের নাম অন্তর্ভুক্ত করে, সঠিক মালিকের কাছে ডোমেন নামটি স্ফীত মূল্যে বিক্রি করার অভিপ্রায়ে।


সাইবার-স্কোয়াটিং ডোমেইন নামের নিবন্ধনকেও জড়িত করতে পারে যেগুলি ইচ্ছাকৃতভাবে ভুল বানান করা হয় বা বিশেষ ব্র্যান্ড বা পণ্যের জনপ্রিয়তা থেকে লাভের প্রয়াসে অতিরিক্ত শব্দ বা বাক্যাংশ অন্তর্ভুক্ত করে।


বাংলাদেশে সাইবার স্কোয়াটিং এর আইনি প্রতিকার


বাংলাদেশে, সাইবার স্কোয়াটিং-এর শিকার ব্যক্তিদের জন্য যে আইনি প্রতিকার পাওয়া যায় তা ডোমেইন নাম সংক্রান্ত বিরোধের মতোই। আইসিটি আইনের অধীনে, একটি পক্ষ ট্রেডমার্ক লঙ্ঘনের জন্য একটি দেওয়ানি মামলা দায়ের করতে পারে বা খারাপ বিশ্বাসে ব্যবহৃত ডোমেন নামের মালিকের বিরুদ্ধে এটি পাস করতে পারে।


উপরন্তু, বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) কোনো ডোমেইন নাম নিবন্ধন বাতিল বা স্থগিত করার ক্ষমতা রাখে যদি এটি খারাপ বিশ্বাসে নিবন্ধিত হয়েছে বলে প্রমাণিত হয়। বিটিআরসি সাইবার-স্কোয়াটারদের উপর জরিমানা আরোপ করতে পারে এবং তাদের ডোমেন নাম রেজিস্ট্রার হিসাবে কাজ করার লাইসেন্স প্রত্যাহার করতে পারে।


দৃশ্যকল্প: একটি সুপরিচিত বাংলাদেশী ফ্যাশন ব্র্যান্ড, "Fashionissta," আবিষ্কার করে যে www.fassionissta.com ডোমেন নামটি একটি সাইবার-স্কোয়াটার দ্বারা নিবন্ধিত হয়েছে৷ সাইবার-স্কোয়াটার একটি স্ফীত মূল্যে ফ্যাশনিস্তার কাছে ডোমেন নাম বিক্রি করার চেষ্টা করছে।


আইনজীবীর ভূমিকা: ফ্যাশনিস্তার প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবীকে দেখাতে হবে যে ফ্যাশনিস্তার "ফ্যাশনিসস্টা" নামে একটি বৈধ এবং স্থায়ী ট্রেডমার্ক রয়েছে এবং সাইবার-স্কোয়াটার ডোমেন নামটি ফ্যাশনিস্তার চিহ্নের সাথে অভিন্ন বা বিভ্রান্তিকরভাবে অনুরূপ৷ আইনজীবীকে এটিও প্রতিষ্ঠিত করতে হবে যে সাইবার-স্কোয়াটার ফ্যাশনিস্তার ট্রেডমার্ক থেকে লাভের অভিপ্রায়ে খারাপ বিশ্বাসে ডোমেন নাম নিবন্ধন করেছে। সফল হলে, আইনজীবী একটি আদালতের আদেশ চাইতে পারেন যাতে ডোমেন নামটি ফ্যাশনিস্টাতে স্থানান্তর করার প্রয়োজন হয়, সেইসাথে সাইবার-স্কোয়াটিংয়ের ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া ক্ষতির জন্য।



কিভাবে আইনজীবী সাহায্য করতে পারেন


বাংলাদেশে ডোমেইন নামের বিরোধ এবং সাইবার স্কোয়াটিং মামলার সমাধানে আইনজীবীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন। আইনজীবীরা সহায়তা করতে পারে এমন কিছু উপায়ের মধ্যে রয়েছে:


1. একটি ট্রেডমার্ক অনুসন্ধান পরিচালনা করা: একটি ডোমেন নাম নিবন্ধন করার আগে বা একটি ডোমেন নাম নিবন্ধনকারীর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার আগে, প্রশ্নযুক্ত নাম বা চিহ্নটি ইতিমধ্যেই ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা তা নির্ধারণ করতে একটি ট্রেডমার্ক অনুসন্ধান পরিচালনা করা গুরুত্বপূর্ণ৷ আইনজীবীরা ট্রেডমার্কের শক্তি নির্ধারণের জন্য একটি পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসন্ধান এবং ফলাফল বিশ্লেষণে সহায়তা করতে পারেন।


2. আইনি নোটিশের খসড়া তৈরি করা: আইনজীবীরা ডোমেইন নাম নিবন্ধনকারীদের কাছে পাঠানোর জন্য আইনি নোটিশ তৈরিতে সহায়তা করতে পারেন যারা ট্রেডমার্ক লঙ্ঘন করছে বা সাইবার-স্কোয়াটিংয়ে জড়িত। এই নোটিশগুলির মধ্যে মামলার পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে বন্ধ এবং বিরতি পত্র, চাহিদা পত্র বা সতর্কীকরণ পত্র অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।


3. দেওয়ানী মামলা দায়ের করা: আইনি নোটিশ বিবাদের সমাধানে সফল না হলে, আইনজীবীরা তাদের ক্লায়েন্টদের পক্ষে দেওয়ানি মামলা দায়ের করতে পারেন। এর মধ্যে সাক্ষ্য-প্রমাণ সংগ্রহ করা, আবেদনপত্র এবং হলফনামা প্রস্তুত করা এবং আদালতে মামলা উপস্থাপন করা জড়িত থাকতে পারে।


4. আলোচনার নিষ্পত্তি: কিছু ক্ষেত্রে, ডোমেইন নামের বিরোধ এবং সাইবার-স্কোয়াটিং মামলা নিষ্পত্তির আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা সম্ভব হতে পারে। আইনজীবীরা তাদের ক্লায়েন্টের অধিকার এবং স্বার্থ রক্ষা করে এমন মীমাংসা নিয়ে আলোচনায় সহায়তা করতে পারে এবং বিচারের সময় এবং ব্যয় এড়িয়ে যায়।



উপসংহার


ডোমেইন নামের বিরোধ এবং সাইবার-স্কোয়াটিং বাংলাদেশে ক্রমশ সাধারণ হয়ে উঠছে এবং ব্যবসা এবং ব্যক্তিদের জন্য মারাত্মক পরিণতি হতে পারে। যাইহোক, দেওয়ানী মামলা, আইনি নোটিশ এবং নিষ্পত্তি আলোচনা সহ এই বিরোধের সাথে জড়িত পক্ষগুলির জন্য আইনি প্রতিকার এবং রেজুলেশন উপলব্ধ রয়েছে।


আইনজীবীরা ট্রেডমার্ক অনুসন্ধান পরিচালনা করে, আইনি নোটিশের খসড়া তৈরি করে, দেওয়ানী মামলা দায়ের করে এবং মীমাংসা করার মাধ্যমে এই বিরোধগুলি সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। তাদের ক্লায়েন্টদের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে এবং সঠিক আইনি পরামর্শ প্রদান করে

1 Comment

Rated 0 out of 5 stars.
No ratings yet

Add a rating
Guest
Mar 20, 2023
Rated 5 out of 5 stars.

⭐️

Like
bottom of page